উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রীর দাবিদার প্রিয়াঙ্কা

Friday, January 21st, 2022

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যে ভোট আসন্ন। ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে নির্বাচন। কার্যত দ্বিমুখী লড়াইয়ের চেহারা নিয়েছে এই ভোটযুদ্ধ–যোগী বনাম অখিলেশ। এর পাশাপাশি আরেকটি প্রশ্ন ছিল–কংগ্রেসের মুখ কে? এই প্রশ্নে শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) পরিষ্কার ইঙ্গিত দিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। সরাসরি না বললেও তার কথায় কার্যত স্পষ্ট যে, উত্তরপ্রদেশের নির্বাচনে প্রিয়াঙ্কাই হচ্ছেন কংগ্রেসের ‘মুখ্যমন্ত্রীর মুখ’।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এ খবর জানিয়েছে।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করেছে কংগ্রেস। এক অনুষ্ঠানে তা প্রকাশ করেন রাহুল-প্রিয়াঙ্কা। প্রিয়াঙ্কার কাছে সাংবাদিকরা জানতে চান, এবারের নির্বাচনে ‘কংগ্রেসের মুখ’ কে? এর উত্তরে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘আপনারা কি অন্য কারও মুখ দেখতে পাচ্ছেন? আমার মুখই তো সর্বত্র দেখা যাচ্ছে, তাই না?’ এর বেশি কিছু তিনি না বললেও, তার ইঙ্গিত স্পষ্ট। এবারের নির্বাচনে যোগী, অখিলেশের মতোই তিনি তার দলের ‘মুখ্যমন্ত্রীর মুখ’।

‘ভারতী বিধান’ নামের যুব ইস্তেহারে একগুচ্ছ প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কংগ্রেস। এর মধ্যে প্রধান প্রতিশ্রুতি–ক্ষমতায় এলে ৪০ লাখ চাকরি দেওয়া হবে। সেইসঙ্গে দেশের যুব সম্প্রদায়ের জন্য নতুন কর্মসংস্থান তৈরির আশ্বাসও দেওয়া হয়েছে ইস্তেহারে। রাহুল গান্ধী জানিয়েছেন, ‘উত্তরপ্রদেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা কর্মসংস্থান। ফলে যুব সম্প্রদায় অসন্তুষ্ট। তাদের সমস্যা কীভাবে সমাধান করা হবে সে ব্যাপারে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার।’

একই সুর প্রিয়াঙ্কার কথাতেও। তিনি বলেন, ‘যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও উত্তরপ্রদেশের তরুণরা চাকরি পান না। কেবল ভুয়া সংখ্যা বলে মানুষকে বোকা বানানো হয়েছে।’ সেই সঙ্গে পরীক্ষা পদ্ধতিতেও ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন তিনি। জানিয়ে দেন, কোনভাবেই প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে। সরকারি জায়গা থেকে ফাঁস হলে কঠোর শাস্তির আশ্বাসও দেওয়া হয়েছে।

প্রিয়াঙ্কা আদৌও ভোটে দাঁড়াবেন কি না, সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। তবে উত্তরপ্রদেশে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার জন্য তাকে কোনও বিধানসভা আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা বা জেতা বাধ্যতামূলক নয়৷

যোগী আদিত্যনাথ বা অখিলেশ যাদব কেউই এর আগে কখনো রাজ্য নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। উভয়েই উত্তপ্রদেশ বিধান পরিষদে একটি করে আসন জিতে মুখ্যমন্ত্রী হন।

যদিও এ বছর আদিত্যনাথ গোরক্ষপুর থেকে এবং অখিলেশ কারহাল কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।